1. info@businessstdiobd.top : admin :
বুধবার, ০৪ অগাস্ট ২০২১, ০৪:৩৮ পূর্বাহ্ন

একাকী ভ্রমণে রোমান্টিক গন্তব্য

‘যে মানুষ একাকী যাবেন, তিনি আজই যাত্রা করতে পারেন। আর যিনি অন্য কারো সঙ্গে ভ্রমণ করবেন, তাকে অন্যের প্রস্তুতির অপেক্ষায় থাকতে হবে’—বলেছিলেন আমেরিকান দার্শনিক ও কবি হেনরি ডেভিড থোরাও। তাই দল বা একের অধিক মানুষ একসঙ্গে ভ্রমণের চেয়ে একাকী ভ্রমণে বেশকিছু সুবিধা রয়েছে।

একসঙ্গে সবার সময়-সুযোগ না হওয়ায় বাধ্য হয়েই অনেক সময় একাকী ভ্রমণ করতে হয়। একাকী ভ্রমণ এক ভিন্ন অভিজ্ঞতা ও অনুভূতি এনে দেয়। আপনি ঠিক যা করতে চাইছেন, তা-ই করতে পারবেন। এর চেয়ে মজার ঘোরাঘুরি আসলে আর হয় না। এখানে আপনাকে অন্য কারো পছন্দের বিষয়টি বিবেচনা করতে হবে না।

একাকী ভ্রমণ সবচেয়ে বেশি রোমাঞ্চকর, উত্তেজনাপূর্ণ ও চ্যালেঞ্জিং। তবে কখনো কখনো নিজেকে নিঃসঙ্গ মনে হতে পারে। এজন্য একাকী ভ্রমণের গন্তব্য বাছাইয়ে সতর্ক থাকতে হয়। শীতের এ ভ্রমণ মৌসুমে অনেকেই দেশের বাইরে ভ্রমণে যাচ্ছেন। অনেকে আবার ভ্রমণ গন্তব্য ঠিক করতে পারছেন না। আজ আপনাদের জানাব একাকী ভ্রমণে এশিয়ার রোমান্টিক গন্তব্যগুলো সম্পর্কে…

ভারতঃ ভারতের আগ্রায় অবস্থিত তাজমহলের স্থাপত্যশৈলী নিয়ে লেখা খুঁজতে গেলে সে তালিকা বেশ দীর্ঘ হবে। সপ্তদশ শতাব্দীতে আগ্রায় যমুনা নদীর তীরে মোগল সম্রাট শাহজাহানের নির্মিত বিশ্বের সপ্তম আশ্চর্যের অন্যতম এ তাজমহল।

এটি বিশ্বের অন্যতম সেরা পর্যটন আকর্ষণ কেন্দ্রও। যে তাজমহল নিয়ে এত কিছু, তা নিজ চোখে দেখার প্রত্যাশা কার না মনে জাগে! এছাড়া ভারতের আরেক শহর কলকাতার গড়ের মাঠ, মার্বেল প্যালেস, হাওড়া ব্রিজ আপনাকে অপূর্ব এক অনুভূতি দেবে।

ইন্দোনেশিয়াঃ অপরূপ সৌন্দর্যের লীলাভূমি দেশটির বালি বিশ্বের প্রথম সারির ভ্রমণ গন্তব্য। বালিকে ‘দ্য লাস্ট প্যারাডাইজ অব আর্থ’ নামেও অভিহিত করা হয়। দ্বীপের বাসিন্দাদের সৌহার্দ্যপূর্ণ আচরণ, সাংস্কৃতিক বৈশিষ্ট্য ও প্রাকৃতিক পরিবেশের মুগ্ধতায় পর্যটকরা বারবার বালিতে অবসরযাপনে যান।

কেনাকাটা, ভোজন ও ভ্রমণের জন্য বালি দুর্দান্ত একটি জায়গা। আপনি যদি বালি দ্বীপে একাকী ভ্রমণের সিদ্ধান্ত নেন, তাহলে স্বপ্নের অভিজ্ঞতার জন্য প্রস্তুত থাকুন। পাহাড়ের গায়ে সিঁড়ির মতো ধান চাষ, জাঁকালো মন্দির, লীলাভূমি রেইনফরেস্ট ও চমত্কার সমুদ্রসৈকতে একা ভ্রমণকারীদের রোমান্টিকতা উপভোগের অফুরন্ত সুযোগ রয়েছে।

থাইল্যান্ডঃ দৃষ্টিনন্দন প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের পাশাপাশি পর্যটনবান্ধব পরিবেশের জন্য দেশটি জনপ্রিয় পর্যটনকেন্দ্র। সৈকতের সাদা নরম বালি, সামনে বিস্তৃত নীল সমুদ্র এবং তাতে চরে বেড়ানো রঙবেরঙের ছোট ছোট নৌকা আর পেছনে সবুজের চাদর বিছানো পাহাড় পর্যটকদের আকৃষ্ট করে পাতায়া সমুদ্রসৈকতে। এছাড়া ঐতিহ্যবাহী থাই বাজার ও অলংকৃত মন্দিরের সর্বজনীন শহর চিয়াং মাই।

অনন্য এ গন্তব্য একাকী ভ্রমণকারীরা মিস করতে চান না। বিস্তৃত পল্লীর ওপর দিয়ে এক উজ্জ্বল সূর্যোদয় দেখতে ভোর ভোর বেরিয়ে পড়ুন। ঘুরে আসুন হাতির অভয়ারণ্য এলিফ্যান্ট নেচার পার্কে। চিয়াং মাইতে ভ্রমণ করার সময় আপনি আপনার মতো ভ্রমণকারী ও স্থানীয়দের সঙ্গে গল্প, কথা ও আড্ডায় মেতে উঠতে পারবেন, যা আপনাকে লাইফটাইম অভিজ্ঞতা দেবে।

ভিয়েতনামঃ তাজা ফল, উষ্ণ সমুদ্র, সাদা বালির সৈকত, আরামদায়ক হোটেল, আশ্চর্যজনক সব উদ্ভিদ ও প্রাণী, বুদ্ধ মন্দির ও প্রাচীন ভবনের জন্য ভ্রমণের ক্ষেত্রে এশীয় এ দেশটির জনপ্রিয়তা অনেক। এছাড়া উঁচু উঁচু পাহাড়, অন্তহীন ধান, প্রাণবন্ত জলপথ ও তিন হাজার কিলোমিটার উপকূলরেখা নিয়ে বিস্তৃত ভিয়েতনাম।

বাস, ট্রেন বা ফ্লাইটের ভালো পরিবহন অবকাঠামো, সস্তা ও সুস্বাদু রাস্তার খাবার এবং মানুষের সৌহার্দ্যপূর্ণ ব্যবহারে আপনি মুগ্ধ হতে বাধ্য। সেখানে আপনি স্থানীয় যেকোনো মানুষের সঙ্গে আলাপ শুরু করতে পারেন এবং গন্তব্যগুলো সম্পর্কে বিস্তর জেনে নিতে পারেন। এর মধ্য দিয়েই আপনি তাদের ইতিহাস-সংস্কৃতি সম্পর্কে ধারণা পেয়ে যাবেন।

মালয়েশিয়াঃ সমুদ্র, পাহাড়, দ্বীপ কী নেই এশিয়ার ভ্রমণের স্বর্গ এ মালয়েশিয়ায়। কুয়ালালামপুরের কাছেই পাবেন গেনটিন হিল রিসোর্ট। ঠাণ্ডা আবহাওয়ার জন্য পরিচিত পাহাড়ি অঞ্চলের এ রিসোর্টে পাবেন থিম পার্ক, কেবল কার ইত্যাদি। কুয়ালালামপুরের মধ্যেই আছে টুইন টাওয়ার নামে খ্যাত প্যাট্রোনাস টাওয়ার। দুই টাওয়ারের মাঝের ব্রিজকে বলা হয় স্কাই ব্রিজ।

সৈকতে বিশ্রামের জন্য রয়েছে লাঙ্কাওই সমুদ্রসৈকত। আরেকটি মূল আকর্ষণ কেবল ট্রেন। দেশটিতে রয়েছে ১৩০ মিলিয়ন বছর আগের তামান নিগারা ন্যাশনাল পার্ক। এটি বিশ্বের অন্যতম প্রাচীন রেইনফরেস্ট। দেশটির সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক ইতিহাস দেখার জন্য সারাওয়াক দুর্দান্ত একটি জায়গা। আপনি সেখানে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক গোষ্ঠীর পারফরম্যান্স, সংগীত কর্মশালা ও শিল্পকর্ম দেখতে পারবেন।

সিঙ্গাপুরঃ ঐতিহ্যবাহী সামাজিক ও সাংস্কৃতিক ইতিহাস, বিভিন্ন ধরনের ক্রিয়াকলাপ, ঘোরার জায়গা, পরিবারবান্ধব পরিবেশ, কেনাকাটা, মজা ও নাইট লাইফ উপভোগ করার জন্য দুর্দান্ত একটি জায়গা সিঙ্গাপুর। এশিয়ার ব্যবসা কেন্দ্র হিসেবে পরিচিত সিঙ্গাপুর ব্যবসায়ীদের কাছেও আকর্ষণীয় একটি জায়গা। সিঙ্গাপুর চিড়িয়াখানা বিশ্বের অন্যতম সুন্দর বন্যপ্রাণী উদ্যান হিসেবে পরিচিত।

এছাড়া চারটি পরিকল্পিত এলাকা দ্বারা পরিবেষ্টিত মারিনা বেতে আপনি অত্যাধুনিক সব স্থাপনা দেখতে পাবেন। আপনি যদি স্থানীয়দের মতো অভিজ্ঞতা অর্জন করতে চান, তাহলে আপনার ভ্রমণের তালিকায় মেরিনা বে যুক্ত করুন। শহরে পাখির চোখের ভিউ, উপসাগরের চারপাশে ট্যাক্সি ভ্রমণ ও ডাবল হেলিক্স সেতুতে একাকী হাঁটা উপভোগ করতে পারবেন। এখানকার আরেকটি মজাদার অভিজ্ঞতা হলো মাউন্ট ফ্যাবার ও সেন্টোসা দ্বীপের মধ্যে কেবল কারে ওঠা।

সূত্র: লোনলি প্লানেট

আরো পড়ুন
© All rights reserved © 2019 Business Studio
Theme Developed BY Desig Host BD