1. info@businessstdiobd.top : admin :
সোমবার, ০১ মার্চ ২০২১, ১০:০৫ পূর্বাহ্ন




টেন্ডার দাখিল করবেন যেভাবে! (ভিডিও সহ বিস্তারিত)

অনেকেই শুধুমাত্র অদক্ষতার কারনে এই ব্যবসায়ে আসার সাহস নিতে পারছেন না। তাদের জন্য ইজিপিতে টেন্ডার বা কেনা ও দাখিল করার বিস্তারিত দেওয়া হল। দেখে নিন তাহলে: দরপত্র status LIVE থাকা পর্যন্ত করণীয়ঃ ই-জিপিতে ক্রয়কারী কর্তৃক দরপত্র বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হবার পর হতে দরপত্র দাখিলের সর্বশেষ (closing) সময় পর্যন্ত দরপত্রের status হলো LIVE। Live status থাকা অবস্থায় সংশ্লিষ্ট ক্রয়কারী এবং দরপত্রে অংশগ্রহনে ইচ্ছুক ঠিকাদারগন বিভিন্ন কার্যক্রম করতে পারেন যেমনঃ

দরপত্রদাতা কি কি করতে পারে: a. দরপত্র দলিল অনলাইনে পড়া বা প্রিন্ট নেয়া, দরপত্র দলিল ক্রয় না করেই নোটিশ publish হবার পর হতে তা অনলাইনে পড়া এবং প্রিন্ট নেয়া যায়। দরপত্র দলিল ক্রয় করে Docs ট্যাব এর ভেতর declaration না দেয়া পর্যন্ত সকল দরপত্র “All tender” এর থেকে search করতে হয়। declaration দেয়ার পর তা “My tender” দেখে নিন Flow chart: Login>Tender>All Tender>Search>Submit>Dashboard>Docs>View Document

b. দরপত্র দলিল ক্রয় করা: ই-জিপি তে দরপত্র দলিল সংশ্লিষ্ট ব্যাংক থেকে ক্রয় করতে হবে – কোন কোন ব্যাংক ই-জিপিতে দরপত্র দলিল বিক্রি করে তা ই-জিপি পোর্টালের home page থেকে দেখা যায়, ব্যাংকে ২টি জিনিস প্রয়োজন হবেঃ দরপত্রদাতার আইডি এবং ক্রয় করতে ইচ্ছুক দরপত্রের আইডি, ব্যাংকে ২ জন কর্মকর্তা এই কাজে সংশ্লিষ্টঃ ই-জিপির ভাষায় তাদেরকে ব্যাংক maker ও ব্যাংক checker বলে

c. Declaration দেয়া: দরপত্র দলিল ক্রয় করে Docs ট্যাব এর ভেতর declaration না দেয়া পর্যন্ত সকল দরপত্র “All tender” থেকে search করতে হয়। declaration দেয়ার পর তা “My tender”, Declaration দেয়া ছাড়া দরপত্র দলিল প্রস্তুত করা যাবে না, দেখে নিন Flow chart: Login>Tender>All Tender>Search>Submit> Dashboard>Docs> declaration

d. pre-tender meeting এ অংশগ্রহন করা
দরপত্র বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখিত সময়ে প্রাক দরপত্র সভা বা pre-tender meeting এ অংশ নেয়া যায়, আগ্রহী দরপত্রদাতা প্রথমে pre-tender meeting শুরু করবে, যারা দরপত্র দলিল ক্রয় করেছে শুধুমাত্র তারাই pre-tender meeting এ অংশ নিতে পারবে, meeting কালীন সময়ে যা যা প্রশ্ন করা হবে তা সবাই দেখতে পারবে, কিন্তু প্রশ্নকর্তার পরিচয় গোপন থাকবে, প্রশ্নের সাথে প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট সংযুক্ত করা যাবে।

e. দরপত্র নিরাপত্তা জামানত ক্রয় করা: ই-জিপি তে দরপত্র নিরাপত্তা জামানত বা tender security সংশ্লিষ্ট ব্যাংক থেকে ক্রয় করতে হবে, প্রয়োজনে দরপত্র দলিল ও tender security একই সাথে ক্রয় করা যায়, ২ বার ব্যাংকে যাবার প্রয়োজন নেই, দরপত্র দলিলে উল্লেখিত শর্ত অনুযায়ী tender security ক্রয় করতে হবে, অন্যথায় দরপত্র মূল্যায়নের সময় তা বাতিল হতে পারে।

f. amendment/corrigendum হলে করণীয়: ক্রয়কারী কর্তৃক corrigendum দেয়া হলে তা ই-জিপির নোটিশে দেখা যাবে,- ই-জিপি গাইড লাইন 3.5.5.2 অনুযায়ী ই-জিপিতে কোন amendment বা corrigendum দেয়া হলে দরপত্রদাতাগন (যারা দরপত্র দলিল ক্রয় করেছেন) ই-জিপি সিষ্টেমে তা অবহিত হবেন, পিপিআর-০৮ এর বিধি ৯৫(২) অনুযায়ী সংশোধন বা সংযোজন দরপত্র দলিলের অবিচ্ছেদ্য অংশ, Corrigendum অনুযায়ী দরপত্র দলিল সংশোধন করে পুনরায় নির্ধারিত সময়ের পূর্বেই দাখিল করতে হবে, দরপত্র সংশোধন না করা হলে তার দায়-দায়িত্ব দরপত্রদাতার।

g. দরপত্র জমা দেয়া: প্রযোজ্য ক্ষেত্রে দরপত্র দলিল সংশোধন সহ নির্ধারিত সময়ের পূর্বেই দরপত্র দাখিল করতে হবে, জয়েন্ট ভেঞ্চার এর মাধ্যমে দরপত্র দাখিল করলে আর আলাদা ভাবে দাখিল করা যাবে না, ই-জিপি গাইড লাইন 3.5.2.3 অনুযায়ী সিষ্টেম হতে সফল ভাবে দরপত্র দাখিল হলে তার একটি স্বীকার পত্র দেওয়া হবে, ই-জিপি গাইড লাইন 3.5.5.3 এবং 3.5.5.4 অনুযায়ী ই-জিপিতে দাখিলকৃত দরপত্রের সাথে সংযুক্ত কোন ফাইল ভাইরাস, corrupt বা অন্য কোন কারণে তা পড়া না গেলে বা ডাউনলোড না করা গেলে এর জন্য সংশ্লিষ্ট দরপত্রদাতা দায়ী থাকবেন,

দরপত্র দলিলে উল্লেখিত সকল ফর্ম ও সকল বাধ্যতামূলক ডকুমেন্টসমূহ সংযুক্ত না করা হলে “Submit” অপশন আসবে না অর্থাৎ দরপত্র দাখিল করা যাবে না, – সকল ফর্ম সমূহ পূরণ করার পর তা ২বার encrypt করতে হবে, BOQ তে rate দেয়ার সময় দশমিকের পর ৩ ডিজিট পর্যন্ত লিখতে হবে (যেমনঃ ৩৪.০০৭, ৩৪.৪৩৮, ইত্যাদি, তবে শেষ ডিজিট শূণ্য হওয়া যাবে না, যেমনঃ ৩৪.৯৮০)।

h. দরপত্র modification/withdraw করা: Corrigendum অনুযায়ী দরপত্র দলিল সংশোধন করে পুনরায় নির্ধারিত সময়ের পূর্বেই দাখিল করতে হবে, দরপত্র সংশোধন না করা হলে তার দায়-দায়িত্ব দরপত্রদাতার, – একাধিক বার দরপত্র সংশোধন বা modification করা যাবে, তবে একবার withdraw করলে আর পুনরায় জমা দেয়া যাবে না, modification এর জন্য encrypted ফর্ম সমূহ decrypt করে অতঃপর পূরণ করতে হবে, আর দরপত্র ইতিমধ্যে সাবমিট হয়ে থাকলে প্রয়োজনীয় encrypted ফর্মটি “cancel form” এ ক্লিক করে তারপর পুনরায় “Fill” করার মাধ্যমে পূরণ করে অতঃপর ২ বার encrypt করার পর জমা দেয়া যাবে, BOQ এর ক্ষেত্রেও একই প্রক্রিয়া প্রযোজ্য।

সংশ্লিষ্ট ক্রয়কারী কি কি করতে পারে: a. pre-tender meeting এ কোন query এর জবাব বা ব্যাখ্যা দেয়া, আগ্রহী দরপত্রদাতা প্রথমে pre-tender meeting শুরু করবে, meeting কালীন সময়ে যা যা প্রশ্ন করা হবে তা সংশ্লিষ্ট ক্রয়কারী এবং তার authorized user দেখতে পারবে, কিন্তু প্রশ্নকর্তার পরিচয় গোপন থাকবে, pre-tender meeting এর query এবং আলোচনা সমূহ ই-জিপি সিস্টেমে জমা (save) থাকবে।

b. প্রযোজ্য ক্ষেত্রে amendment/corrigendum আহবান করা: ক্রয়কারী পিপিআর-০৮ এর বিধি ৯৫(২) অনুযায়ী দরপত্র সংশোধন বা সংযোজন (corrigendum) দিতে পারেন, দরপত্র প্রস্তুতের জন্য নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এক-তৃতীয়াংশের কম সময় অবশিষ্ট থাকাবস্থায় দরপত্র দলিলে কোনরূপ পরিবর্তন বা সংশোধন করা হলে, ক্রয়ের শর্ত এবং সংশোধনের ধরন ও প্রকৃতি বিবেচনাক্রমে তফসিল-২ অনুসারে, ক্রয়কারী দরপত্র দাখিলের সময়সীমা বৃদ্ধি করবে, Corrigendum একাধিক বার দেয়া যায়, পিপিআর-০৮ এর বিধি ৯০(২)(ছ) অনুযায়ী পূর্ববর্তী বিজ্ঞাপন যে যে জায়গায় প্রকাশ করা হয়েছিল, corrigendum নোটিশ-ও সে সব জায়গায় প্রকাশ করতে হবে।

c. সম্পুর্ন দরপত্র প্রক্রিয়া বাতিলের ব্যবস্থা করা: ক্রয়কারী দরপত্র জমার সময় শেষ হবার পূর্বেই দরপত্র বিজ্ঞপ্তি অনুমোদককারী কর্তৃপক্ষের অনুমোদনক্রমে বাতিল করতে পারবে।

দরপত্র দাখিল: যখন Tender LIVE এ থাকে: দরপত্র দলিল ক্রয়কারী কর্তৃক প্রকাশ করার পর হতে দরপত্র দাখিলের সর্বশেষ (closing) সময় পর্যন্ত ই-জিপিতে দরপত্রের status হলো LIVE। Live status থাকা পর্যন্ত দরপত্র দলিল কেনা, জমা দেয়া, pre-tender meeting এ অংশগ্রহন, amendment/corrigendum, দরপত্র withdraw ইত্যাদি কাজে অংশ নেয়া যায়।

এই সময়টা দরপত্রদাতার জন্য অত্যন্ত গূরূত্বপূর্ণ। এই সময়ের মধ্যে দরপত্রদাতাকে সর্বোচ্চ সতর্কতার সাথে তার দরপত্র দলিল প্রস্তুত করতে হয়, ক্রয়কারীর জন্য আকর্ষণীয় মূল্য ধার্য করতে হয়, এই প্রতিযোগিতার মাঝে তাকে আইনগত ও আর্থিক সামর্থ্য দিয়ে প্রমাণ করতে হয় যে সেই সবচেয়ে যোগ্য।

ক্রয়কারীকে দরপত্র বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হবার পর হতে দরপত্র জমার শেষ মূহূর্ত পর্যন্ত খুব সতর্ক ভাবে সবকিছু পর্যবেক্ষণ করতে হয়। আগ্রহী দরপত্রদাতাদের প্রতিক্রিয়া, দরপত্র দলিলের ভূল-ত্রুটি সংশোধন, ইত্যাদি বিভিন্ন বিষয়ে তড়িৎ ব্যবস্থা নিতে হয়। ক্রয়কারীর সামান্য অবহেলা বা অমনোযোগিতার কারনে দরপত্র প্রতিযোগিতায় ভারসাম্য নষ্ট হয়ে যেতে পারে।

তথ্যসূত্র: প্রকিউরমেন্ট বিডি ডটকম।




আরো পড়ুন




© All rights reserved © 2019 Business Studio
Theme Developed BY Desig Host BD