1. info@businessstdiobd.top : admin :
শনিবার, ০৬ মার্চ ২০২১, ০৭:২০ পূর্বাহ্ন




তরুণ ভোক্তাদের আকৃষ্ট করতে মোটরসাইকেল ইন্ডাস্ট্রি!

তথ্য ও প্রযুক্তির ছোঁয়ায় চারদিকে সবকিছুই দ্রুত বদলে যাচ্ছে। বদলে যাচ্ছে মানুষের অভিরুচিও। এ কারণে ভোক্তার পছন্দ-অপছন্দের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে হচ্ছে বিভিন্ন পণ্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানকেও। আর এ ধারাবাহিকতায় পিছিয়ে নেই মোটরসাইকেল ইন্ডাস্ট্রি।

তরুণ বাইকচালকদের কথা মাথায় রেখে প্রতিযোগিতার বাজারে এক কোম্পানিকে ছাড়িয়ে অন্য কোম্পানি মোটরসাইকেল ঘিরে চলছে নানা সংযোজন কিংবা বিয়োজন। একই সঙ্গে দুই চাকার এ যানটির মাধ্যমে ভ্রমণে স্বাচ্ছন্দ্য কিংবা দেখতে-চলতে বাহারি আকারের কথাও নতুন করে মাথায় রাখছে তারা।

কিন্তু প্রশ্ন হলো, তরুণ বাইকচালকদের জন্য এত আয়োজন কেন? তারা কি মোটরসাইকেলকেই চলার জন্য বেশি গুরুত্ব দিয়ে থাকে? যুক্তরাষ্ট্রের মোটরসাইকেল ইন্ডাস্ট্রি কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট ও সিইও টিম বুচি বলেন, আসলে ৬০ দশকের কথা বলুন আর একবিংশ শতাব্দীর কথা বলুন, তরুণরা কখনই জীবনযাপনের জন্য মোটরসাইকেলকে একমাত্র অবলম্বন হিসেবে খুঁজে নেয়নি।

তারা কখনই ভাবেনি এটাই জীবনের সবকিছু। এ তরুণ বাইকচালকরা অন্যান্য সম্পর্কের মতো মোটরসাইকেলকেও উপযোগী বাহন হিসেবে পেতে চেয়েছে। পরিবর্তন কিংবা পরিমার্জনের তালিকায় বিখ্যাত মোটরসাইকেল প্রতিষ্ঠান হার্লে-ডেভিডসনও রয়েছে।

সম্প্রতি তারাও ঘোষণা দিয়েছে, যারা তাদের বিখ্যাত রেট্রো-স্টাইলের মোটরসাইকেল পছন্দ করেন না, তাদের জন্যও ভিন্ন ধরনের মোটরসাইকেল বাজারে আনা হবে। উদাহরণ হিসেবে তারা জানিয়েছে, তাদের ইলেকট্রিক মোটরসাইকেল লাইভওয়ারে থাকছে নতুন এক ধরনের শব্দ। ওই রকম শব্দ এর আগে কখনই হার্লের মোটরসাইকেলেও শোনা যায়নি।

শুধু তা-ই নয়, দীর্ঘ পথ অতিক্রমের চেয়ে তারা দুর্গম রাস্তায় চলাচলের জন্য ‘অ্যাডভেঞ্চার ট্যুরিং’ ও ‘স্ট্রিটফাইটার’ নামে দুটি নতুন ডিজাইনের মোটরসাইকেল বাজারে নিয়ে আসছে।

শুধু তা-ই নয়, অনেক ইলেকট্রিক মোটরসাইকেল কোম্পানি নানা ধরনের অফারও ঘোষণা করেছে। ক্যালিফোর্নিয়াভিত্তিক জিরো মোটরসাইকেল নির্মাতা প্রতিষ্ঠান সরকারের ভর্তুকি ছাড়াই মাত্র ১১ হাজার মার্কিন ডলারে তাদের মোটরসাইকেল বিক্রির ঘোষণা দিয়েছে।

প্রতিষ্ঠানটির সিইও স্যাম প্যাসেল বলেন, আমি যেসব বিষয় পছন্দ করি না, তার সবকিছুই মোটরসাইকেলটি থেকে বাদ দিয়েছি। অভ্যন্তরীণ ইঞ্জিনের কারণে এতে কোনো শব্দ নেই, এমনকি কোনো কম্পনও হবে না। ফলে ভ্রমণের পাশাপাশি পরিবেশ আর এর গতি উপভোগ করা যাবে।

সব মিলিয়ে পরিবেশবান্ধবের পাশাপাশি এ ইলেকট্রিক মোটরসাইকেলটিতে চড়ে মানুষ এক ভিন্ন ধরনের অভিজ্ঞতা পাবে। অন্যদিকে ৩০০ বছরের পুরনো মোটরসাইকেল কোম্পানি হুস্কভার্নার কোনো ইলেকট্রিক মোটরসাইকেল না থাকলেও চালকদের আকৃষ্ট করতে কিন্তু তারাও পিছিয়ে নেই।

এরই মধ্যে মোটরসাইকেলের শক্তি ও গতি বৃদ্ধির ওপর তারা বেশ মনোযোগ দিয়েছে। এক সিলিন্ডার বিশিষ্ট ইঞ্জিনের এ মোটরসাইকেলটি নিজস্ব ডিজাইন ও হালকা ওজনের হবে বলেও জানিয়েছে তারা।

হুস্কভার্না মোটরসাইকেল মূলত দুর্গম রাস্তার বলেই সবার কাছে পরিচিত। তবে এবার তারা সেটা থেকে বেরিয়ে এসে অন্য মোটরসাইকেলের মতো স্ট্রিট বাইক বাজারে আনছে। এর মধ্যে ‘ভিটপিলেম’-এর মূল্য ধরেছে ৬ হাজার ৩০০ মার্কিন ডলার এবং ‘ব্ল্যাক অ্যারো’র দাম ধরেছে ১২ হাজার মার্কিন ডলার।

আর এর মাধ্যমে একটি নির্দিষ্ট গণ্ডিতে আবদ্ধ না থেকে মোটরসাইকেলের বাজারে নতুনভাবে জায়গা করে নিতে চান বলে জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির উত্তর আমেরিকার ব্যবস্থাপনা পরিচালক ব্যালিন শাটলার।

এছাড়া রাশিয়ায় তৈরি ওয়াশিংটনের কোম্পানি ‘উরাল’ও নতুন করে তাদের মোটরসাইকেলের ডিজাইন শুরু করেছে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় রেড আর্মিদের প্রয়োজনে তৈরি করা সাইড কার বলে খ্যাত এ মোটরসাইকেলটির দাম শুরু হয়েছে ১৫ হাজার মার্কিন ডলার থেকে।

প্রতিষ্ঠানটির মার্কেটিং বিভাগের প্রধান মাদিনা মিজইভা বলেন, মোটরসাইকেলটিতে কখনো কোনো সমস্যা দেখা দিলে আপনি এটি বিশ্বের যেকোনো জায়গায় দাঁড় করিয়ে সেখান থেকেই এটা ঠিক করে নিতে পারবেন।

অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রের ইন্ডিয়ান মোটরসাইকেল কোম্পানি গত গ্রীষ্মে স্কাউট বোবার নামে নতুন মোটরসাইকেল বাজারে নিয়ে এসেছে। হার্লে-ডেভিডসনের মতো এটাও ভালো ব্যবসা করছে বলে জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির প্রেসিডেন্ট স্টিভ মেনেট্টো। তবে এই স্কাউট বোবার কেবল যে তরুণদেরই আকৃষ্ট করছে, তা কিন্তু নয়।

স্টিভ জানিয়েছেন, তার কাছে ৮৫ বছরের এক বৃদ্ধ দাবি করেছেন, তিনি নাকি এক বছরে ইন্ডিয়ানের এ মোটরসাইকেল দিয়ে প্রায় ২০ হাজার মাইল রাস্তা অতিক্রম করেছেন!

তথ্যসূত্র: বনিকবার্তা ডটকম।




আরো পড়ুন




© All rights reserved © 2019 Business Studio
Theme Developed BY Desig Host BD