1. info@businessstdiobd.top : admin :
শুক্রবার, ২৩ এপ্রিল ২০২১, ০২:১৪ অপরাহ্ন




পণ্যের বিক্রয় বৃদ্ধির ৬ টি সাইকোলজি টিপস

কখনো কি ভেবে দেখেছেন যে, বিখ্যাত কোম্পানিগুলোর লোগোতে এত বেশি পরিমাণ রঙের ব্যবহার কেন হয়? ভালোভাবে খেয়াল করলে দেখবেন যে, বেশিরভাগ রেস্টুরেন্টের লোগোতেই লাল রঙের ব্যবহার বেশি হয়ে থাকে, যেমন: ইউকেএফসি, কেএফসি, ম্যাকডোনাল্ড, বার্গার কিং ইত্যাদি। সাইকোলজিস্টদের মতে, রেস্টুরেন্টের লোগোতে লাল রঙ দেখলে মানুষের ক্ষিধে বেড়ে যায়, যার ফলে সর্বোপরি খাবারের বিক্রি বৃদ্ধি পায়।

যাই হোক, শুধু এসব কোম্পানিই নয়, আরো অনেক কোম্পানি আছে যারা সাইকোলজি ব্যবহার করে ক্রেতা বৃদ্ধি করছে আর এটা কাজও করছে। কিন্তু এমন কি করলে আপনার ব্যবসাও ক্রেতার মাথায় ঢুকে যাবে? এমন কোন সাইকোলজিগুলো সহজেই আপনি কাজে লাগাতে পারবেন, আপনার পণ্যের বিক্রির জন্য? চলুন জেনে নেয়া যাক, এমন কিছু সাইকোলজি টিপস সম্পর্কে যেগুলোর মাধ্যমে খুব সহজেই আপনার ব্যবসার বিক্রি বৃদ্ধি করা সম্ভব হবে।

যেকোনো পণ্যে অনুভূতির ব্যবহার করুন
আপনি কি কখনো এমন কোনো পণ্য কিনেছেন যা আপনার অনুভুতির বাইরে গিয়ে ক্রয় করতে আপনাকে বাধ্য করেছে? জীবনে একবারের জন্যে হলেও যেকোনো পণ্য ক্রয় করতে গিয়ে আমরা অনুভূতির কাছে ধোঁকা খেয়েছি। এটা স্বাভাবিক। সাউদার্ন ক্যালিফোর্নিয়া ইউনিভার্সিটির নিউরোসায়েন্সের প্রফেসর অ্যান্টোনিয়ো ড্যামাসিয়োর মতে, আমাদের জীবনে প্রায় সবকিছু কেনার ক্ষেত্রেই অনুভূতির অবদান অনেক বেশি। একটা ছোটো চকলেট থেকে শুরু করে স্বপ্নের বাড়ি-গাড়ি কেনা পর্যন্ত প্রায় সবকিছুতেই অনুভূতির অবদান অনেক।

আমরা প্রায় বেশিরভাগ সময়েই একটা পণ্যের উপকারিতা বা অপকারিতার দিকে তাকাই না, অনুভুতিই আমাদের চালায়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে কোম্পানির ট্যাগলাইন কিংবা সাবটাইটেলে অথবা মার্কেটিংয়ের টেকনিকে দেখবেন যে, তারা আপনার অনুভূতি নিয়ে খেলছে। তারা ইমোশনালি আপনাকে ম্যানুপুলেট করছে। সুতরাং, একটা পণ্য বিক্রি করার ক্ষেত্রে আপনার ক্রেতাদের কাছে সেই পণ্যের গুণগান না গেয়ে সেই পণ্যের সাথে জড়িত অনুভূতিটাকে বাইরে নিয়ে আসুন। সেটাকে কাজে লাগিয়ে মার্কেটিং করুন।

সামাজিক প্রমাণ দেখান
মাঝে মাঝে রাস্তা পার হওয়ার সময় আশেপাশে কি এমন কোনো রেস্টুরেন্ট দেখেছেন বা দোকান দেখেছেন যেখানে মানুশ লাইন ধরে দাঁড়িয়ে আছে? আর তখন নিশ্চয়ই আপনার মাথায় এসেছে, “ভেতরে কি চলছে? একবার দেখে আসা দরকার তো!” এটাই হচ্ছে সামাজিক প্রমাণ। যখন আশেপাশের মানুষ এই লাইনটা দেখবে তখন প্রায় সবাই একই কথা ভাববে আর লাইনটাকে আরো বড় করবে। আর এতে করে সেই দোকানের ভ্যালু স্বাভাবিকভাবে বেড়ে যাবে।

এই ধরনের সামাজিক প্রমাণের দ্বারা আপনার কোম্পানির ভ্যালু যে কতটা বেড়ে যায় তা আমাদের ধারণা বাইরে। একইভাবে আপনি চাইলে অনলাইনে আপনার সামাজিক প্রমাণ দেখাতে পারবেন। অনলাইনে আপনার ওয়েবসাইটে বা ফেসবুক পেইজে ক্রেতাদের রিভিউ, টেস্টিমোনিয়াল, রেটিংস ইত্যাদি যত ভালো থাকবে তত বেশি আপনি ক্রেতা ধরে রাখতে পারবেন। সাইজেল রিসার্চে দেখা গিয়েছে যে, প্রায় ৯৫ শতাংশ ক্রেতাই অনলাইনে রিভিউ দেখে তারপরে সেই দোকান থেকে কোনো কিছু ক্রয় করেন।

‘সীমিত সময়ের জন্য’ নামক ভয়ের সৃষ্টি করুন
এটাকে অনেকেই ফোমো এফেক্ট (FOMO – Fear Of Missing Out Effect) বলে থাকেন। বর্তমানে প্রায়ই দেখে থাকবেন যে, প্রত্যেকটা দোকান কিংবা অনলাইন শপেই আমরা ব্ল্যাক ফ্রাইডে বা সাইবার মানডে কিংবা ছাড়ের জন্য অপেক্ষা করি। আর এটাকেই বেশ ভালোভাবে নিয়েছে প্রত্যেকটা দোকানদার। আপনার পণ্য বা সার্ভিসের বিক্রি বৃদ্ধির জন্যেও এটা করতে পারেন। এক্ষেত্রে পোস্টারিং কিংবা অনলাইনের মাধ্যমে আপনার পণ্যের ছাড়ের ব্যাপারটা মানুষকে জানিয়ে দিন। এতে করে তারা এই ছাড়ের দিকে বেশি মনোযোগী হবে।

অনেক দোকানের মার্কেটিংয়েই দেখবেন লেখা থাকে, ‘৫০ শতাংশ ছাড়’ কিংবা ‘এই অফারে পণ্য কেনার আজই শেষ সুযোগ।’ এসব অফার কিন্তু ক্রেতারা বেশ পছন্দ করে থাকেন। আর তারা এসব অফারের জন্যেই আপনার থেকে পণ্য ক্রয় করবে। কারণ, একটা পণ্য যখন তারা ক্রয় করতে চাইবে তখন তারা সেই পণ্যের অফারের মূল্যের সাথে অন্য দোকানের পন্যের মূল্য মিলিয়ে দেখে। আর সে হিসেবে যদি আপনার পণ্যের অফার বেশ ভালো ঠেকে তাদের কাছে, তাহলে খুব সহজেই তারা আপনার এই পণ্য কিনে নিতে পারে।

ক্রিয়া প্রতিক্রিয়ার ব্যবহার করুন
মনে করুন, একটি রেস্টুরেন্টের খাবারের মেন্যুতে প্রায় বিশ ধরণের খাবার রয়েছে। কিন্তু শুধুমাত্র পনের ধরনের খাবারই বেশ ভালো চলছে আর বাকি পাঁচ ধরণের খাবার ততটা বিক্রি হচ্ছে না। বেশ কিছুদিন এভাবে চলার পর রেস্টুরেন্টের মালিক একটা ঘোষণা দিলেন। তিনি বললেন, “যদি কেউ এই পাঁচ ধরণের খাবার থেকে যেকোনো দুটো খাবার একটানা দশদিন খায় তাহলে তাকে বিনামূল্যে বাকি তিন ধরনের খাবার প্যাকেট করে দেয়া হবে।”

এই ঘোষণার পর হঠাত করেই সেই রেস্টুরেন্টের ঐ পাঁচ ধরণের খাবারের চাহিদা বাড়তে শুরু করলো। একসময় ক্রেতারা সেই পাঁচ ধরনের খাবারই বেশি খেতে শুরু করলো। এই ধরণের সাইকোলজিক্যাল পদ্ধতিকে বলে ‘ক্রিয়া প্রতিক্রিয়ার থিওরি।’ ক্রেতারা শুধু অর্থ দিয়ে খাবার ক্রয় করতেই পছন্দ করে না, বরঞ্চ প্রত্যেকেই কিছু না কিছু ছাড় কিংবা সুবিধা পেতেও পছন্দ করে।

গোল্ডিলকস এফেক্ট (Goldilocks Effect)
আমরা সবাই গোল্ডিলকসের ঘটনাটি তো জানি তাই না? গোল্ডিলকস একবার এক জঙ্গলে হাঁটতে গিয়ে তিন ভালুকের একটা ঘর দেখতে পেলো। গোল্ডিলকস অনেক বেশি হাঁটাহাঁটি করে এসেছিলো আর তাই সে ঘরে ঢুকেই রান্নাঘরে চলে গেলো। সেখানে সে তিন বাটি মধু দেখতে পেলো। প্রথম বাটির মধু বেশি গরম থাকায় সে সেটা খেলো না, দ্বিতীয় বাটির মধু বেশি ঠান্ডা থাকায় সে সেটিও খেলো না আর তৃতীয় বাটির মধু কিছুটা গরম আর কিছুটা ঠান্ডা থাকায় সে সেটা খেয়ে চলে আসলো।

গোল্ডিলকস যেমন একেবারে গরম পাত্র কিংবা একেবারে ঠান্ডা পাত্রের মধু বাছাই করেনি ঠিক একইভাবে একজন ক্রেতাও অতিরিক্ত সস্তা কিংবা অতিরিক্ত দামী কোনো পণ্য ক্রয় করতে চাইবে না। আর সেজন্যে আপনাকে অবশ্যই ‘মিডল অপশন’ রাখতে হবে।

সূত্রঃ ইন্টারনেট




আরো পড়ুন




© All rights reserved © 2019 Business Studio
Theme Developed BY Desig Host BD