1. info@businessstdiobd.top : admin :
  2. 123@abc.com : itsme :
মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:২৩ পূর্বাহ্ন

বিষ নেই এমন সাপ চেনার উপায়!

বিষদাঁত ও বিষ উৎপাদক অঙ্গ বা বিষগ্রন্থিহীন সাপকেই নির্বিষ সাপ বলা হয়। বাংলাদেশে প্রায় ৯৪ প্রজাতির সাপের মধ্যে তিন-চতুর্থাংশই নির্বিষ। তাই সাপে দংশন করলেই আতঙ্কিত হবেন না। নির্বিষ সাপে আক্রান্ত স্থানে সামান্য ব্যথা থাকে এবং লাল হয়ে যায়।

ক্ষীণ বিষধর সাপের বিষথলিতে এত কম বিষ থাকে যে, পুরোটা কারও শরীরে ঢেলে দিলেও রোগী মারা যায় না। অধিকাংশ নির্বিষ সাপের মজবুত পিছনমুখী দাঁত রয়েছে, যা দ্বারা শিকারকে শক্তভাবে ধরে রাখতে এবং চেপে মারতে পারে। কোনো কোনো সাপ শিকারের নড়াচড়ার শক্তি না হারানো পর্যন্ত সেটা শক্তভাবে ধরে রাখে।

দেশের কিছু নির্বিষ বা ক্ষীণ বিষধর সাপ: কালনাগিনী সাপকে অনেকে বিষধর সাপ মনে করেন। আসলে কালনাগিনী সাপে বিষ নেই। দাঁড়াশ সাপ আক্রমণাত্মক বলে অনেকেই একে ভয়ঙ্কর ও বিষাক্ত বলে মনে করে। তবে এ সাপে বিষ নেই।

বাংলাদেশে একই সাপ এলাকা ভেদে ভিন্ন ভিন্ন নামে পরিচিত। দেশের কিছু নির্বিষ সাপের মধ্যে অজগর একটি। অজগর গোত্রের তিনটি প্রজাতি বাংলাদেশে আছে। এরা খাবারের জন্য ঘাপটি মেরে বসে থাকে। শিকার কাছে এলে কামড়ে পেঁচিয়ে ধরে চাপ দিয়ে শ্বাস বন্ধ করে মেরে ফেলে আস্ত গিলে খায়।

ঘরগিন্নি সাপও নির্বিষ। এর তিনটি প্রজাতি আছে এর মধ্যে দুটি বিরল। বাংলাদেশে বেশি পাওয়া যায় হলুদাভ ঘরগিন্নি সাপ। কালোমাথা সাপও নির্বিষ। এটি দুধরনের যথা ক্যান্টরের কালোমাথা সাপ ও ডুমেরিলের কালোমাথা সাপ। ঢোড়া সাপ দেশের প্রতিটি অঞ্চলেই দেখতে পাওয়া যায়। তবে এর ক্ষীণবিষ রয়েছে। এরা পানিতে থাকতে পছন্দ করে। এদের প্রিয় খাবার মাছ।

মেটে সাপ বা বাইট্টা সাপও ঢোড়া সাপের মতো সাধারণ ও সহজলভ্য সাপ। এরাও পানিতে থাকতে পছন্দ করে। এদের মাথা অপেক্ষাকৃত সরু।দাঁড়াশ বা দাঁড়াজ সাপও বাংলাদেশে অহরহ দেখা যায়। ইংরেজিতে একে ইন্ডিয়ান র‌্যাট স্নেক বলে। এদের প্রধান খাবার ইঁদুর। এদের ব্যবহার খুবই আক্রমণাত্মক ও মারমুখী। দাঁড়াশ সাপের এই ব্যবহারের জন্য মানুষ একে ভয়ঙ্কর ও বিষাক্ত বলে মনে করে। এরা খুব দ্রুত গতিতে চলাফেরা করতে পারে।

কালনাগিনী একটি নির্বিষ সাপ। গাছের ওপর থাকতে ভালোবাসে। এমনকি এক গাছের উঁচু অংশ থেকে আরেক গাছের নীচু অংশে লাফ দিতে পারে। এদের ফ্লাইং ট্রি স্নেকও বলা হয়। লাউডগা সাপ কয়েক প্রজাতির রয়েছে। যেমন পাতি লাউডগা সাপ, ছোট-নাক লাউডগা সাপ ইত্যাদি। এটি সুতানালি সাপ নামেও পরিচিত। এটি সরু, চিকন, লম্বা, মাথার অগ্রভাগ সুচালো এবং একদম সবুজ সাপ।

বালুবোড়া নিরীহ ও শ্লথগতির সাপ। ডিম থেকে নয় এরা সরাসরি বাচ্চা প্রসব করে। একত্রে ৮-১০টি বাচ্চা দেয়। অজগরের মতো এরাও ওঁৎ পেতে শিকার করে। ইঁদুর এদের প্রধান খাদ্য বলে এরা কৃষকের বন্ধু বলে পরিচিত। বালুবোড়াকে অনেক সময় শিশু অজগরও বলা হয়। দুধরাজ সাপও নির্বিষ। এর নাম দুধরাজ হলেও এই সাপ দুধ খায় না।

তথ্যসূত্র: বাংলাদেশ প্রতিদিন।

আরো পড়ুন
© All rights reserved © 2019 Business Studio
Theme Developed BY Desig Host BD