1. info@businessstdiobd.top : admin :
  2. 123@abc.com : itsme :
মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:০২ পূর্বাহ্ন

৫ প্রকল্প সময়মত শেষ না হওয়ায় ব্যয় বেড়েছে ৪২ হাজার কোটি টাকা

নির্ধারিত ব্যয় ও সময়ে বাস্তবায়ন হচ্ছে না ৫ মেগা প্রকল্প। এতে খরচ বেড়ে যাচ্ছে প্রায় ৪২ হাজার ১৫৭ কোটি টাকা। এরপরও বর্ধিত সময়ে কাজ শেষ হওয়া নিয়ে শঙ্কা আছে। ফলে এসবের সুফল ভোগের বিষয় আটকে যাচ্ছে দীর্ঘসূত্রতায়। খবর সংশ্লিষ্ট সূত্রের। প্রকল্পগুলো হচ্ছে- পদ্মা সেতু, কর্ণফুলী টানেল নির্মাণ, সাপোর্ট টু ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে পিপিপি প্রজেক্ট, পদ্মা সেতুতে রেল সংযোগ এবং দোহাজারী-রামু-গুনদুম পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণ।

৫ প্রকল্পের মূল অনুমোদিত ব্যয় ছিল ৫৮ হাজার ৬৬৬ কোটি ৪৬ লাখ টাকা। নানা কারণে ব্যয় বেড়ে ১ লাখ ৮২৪ কোটি টাকা দাঁড়িয়েছে। এর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে- নকশায় ক্রটি, সম্ভাব্যতা যাচাই দুর্বলতা, অর্থায়ন জটিলতা, ভূমি অধিগ্রহণ ও পুনর্বাসন ব্যয় বৃদ্ধি। সমস্যাগুলোর কারণেই বাস্তবায়নের সময়ও বাড়ানো হয়েছে।

প্রকল্প পরিচালকরা বলছেন, বাস্তবায়ন দেরি হলে ব্যয় তো কিছুটা বাড়বেই। এসব ক্ষেত্রে ব্যয় বৃদ্ধির যুক্তিসঙ্গত কারণও আছে। এদিকে বাস্তবায়ন, পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগ (আইএমইডি) বলছে, ৭০ শতাংশ প্রকল্পই নির্ধারিত সময়ে শেষ হয় না। অনেক সময় বাস্তব অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে ব্যয় ও মেয়াদ বাড়লেও নির্দিষ্ট সময়ে, প্রকল্পগুলোর বাস্তবায়ন জরুরি।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. সালেহউদ্দিন আহমেদ বলেন, এটা জনগণের টাকার অপচয়। যথাসময়ে প্রকল্পগুলো বাস্তবায়িত হলে অনেক কম খরচ হতো। যারা সম্ভাব্যতা যাচাই করেন তারা অধিকাংশ ক্ষেত্রে সময় নির্ধারণের বিষয়ে দক্ষ হন না। সঠিকভাবে ব্যয়ও নির্ধারণ করতে পারেন না। এছাড়া নানা কারসাজিও থাকে। ফলে কস্ট বেড়ে যায়। প্রকল্প প্রণয়ন, বাস্তবায়ন এবং মনিটরিংসহ সব জায়গায় দুর্বলতা রয়েছে। এ কারণে প্রকল্পের সুফল জনগণ দেরিতে পায়।

অর্থনীতিবিদ ও বিশ্বব্যাংক ঢাকা অফিসের সাবেক লিড ইকোনমিস্ট ড. জাহিদ হোসেন বলেছেন, ব্যয় বৃদ্ধির কারণগুলো খতিয়ে না দেখলে বলা মুশকিল। তবে ভূমি অধিগ্রহণের নতুন নীতিমালা হওয়ার আগেই যদি কোনো প্রকল্প অনুমোদন হয়ে থাকে সেক্ষেত্রে ভিন্ন কথা। কিন্তু শুধু গাফিলতি, নকশায় ত্রুটি, বাস্তবায়নে দীর্ঘসূত্রতা এমন কারণে ব্যয় বেড়ে গেলে তা অবশ্যই অপচয়।

তিনি আরও বলেন, যেহেতু এখন প্রকল্প বাস্তবায়ন শুরু হয়েছে, সেহেতু এগুলো এগিয়ে নিতে ঠিকাদারদের দিকে নজর রাখতে হবে। কেননা তারা পরিকল্পনা অনুযায়ী বাস্তবায়ন কাজ করছে কিনা তা দেখতে হবে। ঠিকাদারদের জবাবদিহিতি নিশ্চিত করা জরুরি।

সূত্র জানায়, পদ্মা বহুমুখী সেতু নির্মাণ প্রকল্পটি ২০০৭ সালের জুলাই থেকে ২০১৫ সালের জুনের মধ্যে বাস্তবায়নের কথা ছিল। সে সময় মূল অনুমোদিত ব্যয় ধরা হয়েছিল ১০ হাজার ১৬১ কোটি ৭৫ লাখ টাকা। কিন্তু বিশ্বব্যাংক অর্থায়ন থেকে সরে যাওয়াসহ নানা জটিলতায় শুরুতেই হোঁচট খায় প্রকল্পটি।

পরে সরকারের নিজস্ব অর্থায়নে ২০০৯ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৫ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে বাস্তবায়নের লক্ষ্য নির্ধারণ করে প্রথম সংশোধনীতে ব্যয় ধরা হয় ২০ হাজার ৫০৭ কোটি ২০ লাখ টাকা। কিন্তু বাস্তবায়ন পর্যায়ে নদীর তলদেশে মাটির স্তরের সমস্যাসহ নানা জটিলতায় ডিজাইন পরিবর্তনের কারণে দ্বিতীয় সংশোধন করতে হয়।

এ পর্যায়ে ব্যয় বেড়ে দাঁড়ায় ২৮ হাজার ৭৯৩ কোটি ৩৯ লাখ টাকা। এক্ষেত্রে মূল বরাদ্দের তুলনায় ব্যয় বেড়েছে ১৮ হাজার ৬৩২ কোটি টাকা। মেয়াদ বাড়ানো হয় ২০১৮ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত। পরে মেয়াদ আরও বাড়িয়ে ২০১৯ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত করা হয়েছে। ফের নতুন করে দেড় বছর মেয়াদ বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে পরিকল্পনা কমিশনে।

২০২১ সালের জুন পর্যন্ত নতুন মেয়াদ ধরা হয়েছে। গত জুলাই মাস পর্যন্ত সার্বিক অগ্রগতি হয়েছে ৭২ শতাংশ। মূল সেতু নির্মাণ কাজ ৮২ শতাংশ শেষ হয়েছে। এ প্রসঙ্গে প্রকল্প পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার শফিকুল ইসলাম যুগান্তরকে বলেন, ব্যয় কেন বেড়েছে সে বিষয়ে সবাই জানেন। পুরনো চর্বি এটা, তাই এ নিয়ে কিছু বলতে চাই না।

সাপোর্ট টু ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে (পিপিপি) প্রকল্পটি ২০১১ সালের জুলাই থেকে ২০১৬ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে বাস্তবায়নের কথা ছিল। মূল অনুমোদিত ব্যয় ধরা হয় ৩ হাজার ২১৬ কোটি টাকা। কিন্তু পুনর্বাসন ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় অতিরিক্ত খরচ হচ্ছে ১৬৫২ কোটি ২১ লাখ টাকা। ফলে মোট খরচ দাঁড়িয়েছে ৪ হাজার ৮৬৯ কোটি টাকা।

এছাড়া প্রথম সংশোধনীতে মেয়াদ বাড়ানো হয় ২০২০ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত। শুরু থেকে গত ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত খরচ হয়েছে ২ হাজার ৩৮৯ কোটি টাকা। জানতে চাইলে প্রকল্পের সাবেক পরিচালক (পিডি) কাজী মো. ফেরদৌস বলেন, বাস্তবায়ন দেরি হলে ব্যয় বাড়বে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু এ ক্ষেত্রে ভূমি অধিগ্রহণ এবং পুনর্বাসনের বেশি টাকা লাগায় ব্যয় বেড়ে যায়। তাই এই বৃদ্ধিকে অপচয় বলা যায় না।

এছাড়া পদ্মা সেতুতে রেল সংযোগ প্রকল্পটি ২০১৬ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২২ সালের জুনের মধ্যে ৩৪ হাজার ৯৮৮ কোটি ৮৬ লাখ টাকা ব্যয়ে বাস্তবায়নের কথা ছিল। কিন্তু পরে চায়না এক্সিম ব্যাংকের অর্থায়ন সংক্রান্ত জটিলতায় বাস্তবায়ন পিছিয়ে যায়। ফলে প্রথম সংশোধনীতে চার হাজার ২৫৮ কোটি টাকা বাড়িয়ে মোট ব্যয় ধরা হয় ৩৯ হাজার ২৪৬ কোটি ৮৬ লাখ টাকা।

মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে ২০২৪ সালের জুন পর্যন্ত। গত জুলাই মাস পর্যন্ত প্রকল্পটির বাস্তবায়ন অগ্রগতি হয়েছে ভৌত ১৬ দশমিক ৯৩ শতাংশ এবং আর্থিক অগ্রগতি ২৯ দশমিক ৯১ শতাংশ। প্রকল্প পরিচালক ফখরুদ্দিন আহমেদ চৌধুরী জানান, বাড়তি ভূমি অধিগ্রহণ করতে হয়েছে। ফলে ব্যয় বেড়েছে।

কর্ণফুলী নদীর তলদেশে বহু লেন টানেল নির্মাণ প্রকল্পটি ৮ হাজার ৪৪৬ কোটি ৬৩ লাখ টাকা ব্যয়ে ২০১৫ সালের নভেম্বর থেকে ২০২০ সালের জুনের মধ্যে বাস্তবায়নের অনুমোদন দেয় একনেক। কিন্তু চীনা এক্সিম ব্যাংকের ঋণ প্রক্রিয়া নানা জটিলতার কারণে বাস্তবায়ন পিছিয়ে যায়। পরে প্রথম সংশোধনীর মাধ্যমে এক হাজার ৪৩৩ কোটি ৭৬ লাখ টাকা বাড়িয়ে মোট ব্যয় ধরা হয় ৯ হাজার ৮৮০ কোটি ৪০ লাখ টাকা। আগস্ট পর্যন্ত কর্ণফুলী টানেলের অগ্রগতি ৪৫-৪৬ শতাংশ।

দোহাজারী, রামু হয়ে কক্সবাজার এবং রামু থেকে মিয়ানমারের কাছে গুনধুম পর্যন্ত সিঙ্গেল লাইন ডুয়েলগেজ ট্র্যাক নির্মাণ প্রকল্পটি ২০১০ সালের জুলাই থেকে ২০১৩ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে বাস্তবায়নের কথা ছিল। সে সময় ব্যয় ধরা হয় এক হাজার ৮৫২ কোটি ৩৫ লাখ টাকা। উন্নয়ন সহযোগী সংস্থা থেকে অর্থায়নের বিষয়টি নিশ্চিত না হওয়ায় বাস্তবায়ন পিছিয়ে যায়।

সেই সঙ্গে প্রথম পর্যায়ে সিঙ্গেল লাইন মিটার গেজ ট্র্যাক নির্মাণের কথা থাকলেও একনেকে এবং ২০১৪ সালে রেলপথ মন্ত্রণালয় পরিদর্শনের সময় প্রধানমন্ত্রী মিটার গেজের পরিবর্তে ডুয়েল গেজ নির্মাণের নির্দেশনা দেন। ফলে প্রথম সংশোধনীতে ১৬ হাজার ১৮২ কোটি টাকা ব্যয় বাড়িয়ে ১৮ হাজার ৩৪ কোটি ৪৮ লাখ টাকা নির্ধারণ করা হয়।

বাস্তবায়নকাল ধরা হয়েছে ২০১৬ সালের জুন থেকে ২০২২ সালের জুন পর্যন্ত। গত জুলাই পর্যন্ত প্রকল্পটির ভৌত অগ্রগতি হয়েছে ২৮ শতাংশ এবং আর্থিক অগ্রগতি ২২ দশমিক ০৭ শতাংশ। ব্যয় বৃদ্ধি প্রসঙ্গে জানতে চাইলে আইএমইডি’র সচিব আবুল মনছুর মো. ফয়েজউল্লাহ বলেন, বর্তমানে যেসব প্রকল্পের কাজ হচ্ছে সেগুলোর ৭০ শতাংশই নির্দিষ্ট মেয়াদে শেষ হবে না।

তিনি বলেন, বিলম্বের পেছনে অনেক সময় যৌক্তিক কারণও থাকে। যেমন ডিজাইন হয়তো এক রকম করা হয়েছে কিন্তু কাজ করতে গিয়ে পরিবর্তন করতে হচ্ছে বা সব জায়গার মাটি তো এক রকম নয়, এ রকম নানা কারণ থাকে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, অনেক সময় সম্ভাব্যতা যাচাই হয়তো ঠিকমতো করতে পারে না। তবে টাইম ওভাররান হলে কস্ট ওভার রান হবেই। এজন্য প্রকল্পগুলো নির্দিষ্ট সময়, ব্যয় এবং মান বজায় রেখেই বাস্তবায়ন করা উচিত। তথ্যসূত্র: যুগান্তর।

আরো পড়ুন
© All rights reserved © 2019 Business Studio
Theme Developed BY Desig Host BD